ইউটিউব থেকে আয় করার উপায় - A to Z গাইডলাইন


ইউটিউব থেকে আয় করার উপায়

একটা সময় আমরা জানতাম ইউটিউব এ শুধু ভিডিও দেখা যায়। কিন্তু এখন আমরা প্রায় সবাইই জানি ইউটিউব এ ভিডিও দেখার পাশাপাশি চাইলে ইনকামও করা যায়। আজকে শুধু একটা বেসিক আইডিয়া দিয়ে দিব, কি কি উপায়ে ইউটিউব থেকে আয় করা যায় তার উপর। চলুন শুরু করা যাক।

ইউটিউব থেকে আয় করার উপায়


কি কি উপায়ে ইউটিউব থেকে ইনকাম করা যায়?

ইউটিউব থেকে বেশ কয়েক উপায়ে টাকা ইনকাম করা যায়। তার মধ্যে জনপ্রিয় এবং সহজ উপায়গুলো নিয়ে আজ কথা বলব।


১। ইউটিউব পার্টনার হয়ে
ইউটিউব এর পার্টনার হওয়া মানে আপনি ইউটিউব এর হয়ে কাজ করবেন। সে জন্য আপনাকে এপ্লাই করতে হবে। প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ এপ্লিকেশন করে। তাই আপনার এপ্লিকেশন সাথে সাথেই এপ্রুভ হয়ে যাবে এমনটা ভাবা যাবেনা। আপনার চ্যানেল এ কোয়ালিটি ভিডিও থাকতে হবে এবং পর্যাপ্ত ভিজিটর থাকতে হবে। আর কোয়ালিটি ভিডিও বলতে ১০০% নিজের তৈরী করা ভিডিও, কারো থেকে কপি করা বা চুরি করা ভিডিও না। তারপর আপনার এপ্লিকেশন এপ্রুভ করলে ওরা আপনার চ্যানেল এর মাধ্যমে ইনকাম করবে এবং   ওরা আপনাকে মান্থলি টাকা দিতে থাকবে।

২। গুগল এডসেন্স এর এড শো করে
আমরা ভিডিও দেখার সময় ভিডিওর নিচে এবং সাইডে ২ রকম এড শো করে। এগুলোই এডসেন্স এর ব্যানার এড। আবার ভিডিওর মাঝখানে ৫/১০ সেকেন্ড এর এড দেয় এটাও এডসেন্স এর ভিডিও এড। তো আপনার চ্যানেল এ এ রকম বিজ্ঞাপন দেখিয়ে আয় করতে চাইলে আপনার চ্যানেল সাজানোর পর এডসেন্স এর জন্য এপ্লাই করতে হবে। ইউটিউব এডসেন্স এপ্রুভ করতে খুব বেশি সময় নেয় না। সর্বোচ্চ এক দিনের মধ্যেই আপনার একাউন্ট এপ্রুভ করবে। তারপর এড শো করানোর জন্য মনিটাইজেশন অন করতে হবে। মনিটাইজেশন অন করার জন্য আপনার চ্যানেল এর মোট ভিউ ১০,০০০ এর বেশি হতে হবে। তাহলেই আপনার ভিডিওতে এডসেন্স এর এড শো করবে। ত আপনি এডসেন্স থেকে আয় করার জন্য অবশ্যই ভাল মানের ভিডিও দিতে হবে এবং ভিডিওতে ভিউ হতে হবে। বিস্তারিত আলোচনা করে আরেকটি পোস্ট লিখব।

৩। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে
আপনি চাইলে ইউটিউব পার্টনার না হয়ে অথবা আপনার ভিডিওতে এড শো না করে অথবা এড শো করার পাশাপাশি অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করেও ইনকাম করতে পারেন। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং হচ্ছে কমিশন এর বিনিময়ে কারো প্রোডাক্ট সেল করে দেয়া। যেমন ক্লিকব্যাংক অথবা এমাজন এর প্রোডাক্ট সেল করে সেখান থেকে আপনি কমিশন নিয়ে ইনকাম করতে পারেন। এছাড়াও বিভিন্ন সিপিএ মার্কেটপ্লেস এর অফার প্রমোট করেও ইনকাম করতে পারবেন।

৪। স্পন্সরশিপ করে
আপনার চ্যানেল অথবা ভিডিও যদি পপুলার হয় অর্থাৎ ভিডিওতে যদি অনেক ভিউ এবং সাবস্ক্রাইবার থাকে তাহলে আপনি বিভিন্ন কোম্পানীর কাছ থেকে স্পন্সরশীপ নিয়ে তাদের প্রোডাক্ট এর প্রচারণা করে দিয়ে সেখান থেকেও আয় করতে পারবেন।

৫। প্রোডাক্ট সেল করে
আপনার যদি নিজস্ব কোন প্রোডাক্ট থাকে তাহলে ওয়েবসাইট এবং ফেসবুকের পাশাপাশি ইউটিউবেও আপনার প্রোডাক্ট এর প্রমোশন করে প্রোডাক্ট সেল করে আয় করতে পারেন।

৬। সার্ভিস / ফ্রীলান্স ওয়ার্ক সেল করে
আপনি যদি ফ্রীলান্সার হয়ে থাকেন তাহলে আপনি আপনার সার্ভিস যেমন, গ্রাফিক্স ডিজাইনিং, ওয়েব ডিজাইনিং, ইমেইল মার্কেটিং, সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এগুলোর ব্যাপারে ডিটেইলস ভিডিও দিয়ে আপনার সার্ভিস সেল করতে পারেন।

৭। সাবস্ক্রীপশন / মেম্বারশীপ সেল করে
আপনি যদি এমন কিছু জানেন অথবা এমন কিছু ভিডিও/টিউটোরিয়াল যদি আপনার কাছে থাকে যেগুলো মানুষ টাকা দিয়ে হলেও দেখতে চাইবে তাহলে আপনি প্রিমিয়াম সার্ভিস চালু করতে পারেন। কিছু ফ্রি ভিডিও দিয়ে মানুষকে আপনার ভিডিও সম্পর্কে আইডিয়া দিবেন তারপর আপনার প্রিমিয়াম সার্ভিসটি নিতে বলবেন।

৮। ডেস্ক্রীপশন এ লিংক সেল করে
আপনার ভিডিওতে যদি অনেক বেশি ভিউ থাকে তাহলে আপনার ভিডিওর ডেসক্রিপশন এ বিভিন্ন কোম্পানির প্রোডাক্ট এর লিংক সেল করে টাকা ইনকাম করতে পারেন। আপনার কাজ হবে এসইও করে ভিডিওগুলো র‍্যাংক করানো এবং তাতে প্রচুর ভিউ আনা। তারপর লিংক সেল করবেন।

ইউটিউব থেকে আয় করার ৮টি উপায় আলোচনা করলাম।


ইউটিউব চ্যানেল থেকে ইনকাম করার জন্য কি করতে হবে?

প্রথমেই আপনার ইউটিউব থেকে ইনকাম করার জন্য ইউটিউব এর নীতিমালা জেনে নিতে হবে। সেগুলো জেনে একটি চ্যানেল খুলতে হবে। চ্যানেলটি এমনভাবে কাস্টমাইজ করতে হবে যেন ভিউয়ারস রা দেখে প্রফেশনাল মনে করে। এরপর ভিডিও দিতে হবে। এখন কথা হচ্ছে কি ধরণের ভিডিও দিবেন? ইউটিউব সবসময় কোয়ালিটিকে প্রাধান্য দেয়। তাই আপনার কোয়ালিটিফুল ভিডিও বানাতে হবে যাতে দর্শকরা দেখে ভাল লাগে এবং ইউটিউব এর কাছেও ভাল মনে হয়। ভুলেও অন্য কারো ভিডিও কপি করে অথবা চুরি করে আপনার চ্যানেল এ আপলোড দিবেন না। তাহলে ইউটিউব আপনার চ্যানেল ব্যান করে দিবে। আর আপনি যে জিনিসটা ভাল পারেন সেটা নিয়ে ভিডিও বানাবেন। শুধু শুধু উল্টাপাল্টা যা তা ভিডিও দিলেই ইউটিউব থেকে ইনকাম করতে পারবেন না। ভিডিও দেয়ার পর ভিউ এবং সাবস্ক্রাইবার বাড়াতে হবে। সে জন্য আপনাকে ভিডিও এসইও করতে হবে। যখন আপনার চ্যানেল অথবা ভিডিও তে ভিউ আসা শুরু হবে তখন থেকেই আপনার আয় শুরু হবে।

কিভাবে একাউন্ট খুলবেন, কি টপিক নিয়ে ভিডিও বানাবেন, টাকা কিভাবে তুলবেন সেগুলো নিয়ে বিস্তারিত আরেকটা পোস্ট লিখব। আপনাদের কোন প্রশ্ন থাকলে কমেন্ট করুন অথবা ফেসবুক পেজ এ মেসেজ দিন।

আরও পড়ুন-


পোস্টটি ভাল লাগলে ফেসবুকে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না।

Post a Comment

5 Comments